রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৮:২১

বরিশালে একটি সেতুর অভাবে জীবন ঝুঁকিতে কয়েক হাজার মানুষ!

dynamic-sidebar

খবর বরিশাল ডেস্ক॥ বরিশালে একটি ব্রিজের অভাবে জীবনের ঝুকি নিয়ে ছোট্ট খেয়া পারাপার হচ্ছেন ৫ গ্রামের বাসিন্দারা, আর এতে প্রায়ই ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা। তাই বাধ্য হয়ে নিজেরাই তৈরির উদ্যোগ নিলেন বাশের সেতু। বর্তমান সরকার যখন প্রত্যন্ত অঞ্চলে উন্নয়নের ছোঁয়া দিয়েছেন তখন একটি সেতুর অভাবে অবহেলিত ওই ৫ গ্রামের বাসিন্দারা।

বরিশাল সদর উপজেলার টুঙ্গিবাড়িয়া ও চরমোনাই ইউনিয়নের ৫ গ্রামের প্রায় ২৫ হাজার বাসিন্দাদেও দূর্ভোগ যেনো দেখার কেউ নেই! বর্ষাকালে এ দুর্দশা আরও তীব্র আকার ধারণ করে। নদী পার হতে গিয়ে প্রতিনিয়ত মানুষকে ছোট বড় নানা ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়।

এমনকি সন্ধ্যার পরে মাঝি না থাকায় খেয়া পারাপারে ভোগান্তি পোহাতে হয় গ্রামবাসীদের। রোগীদের ক্ষেত্রে ভোগন্তির মাত্রা আরো বেশি। এই গ্রামের দুইদিক থেকে ঘিরে রেখেছে আড়িয়াল খাঁ ও বুখাইনগর নদী। অনেকটা দ্বীপের মতো টুঙ্গিবাড়িয়া ও চরমোনাই ইউনিয়নের এই গ্রামগুলো।

শুধু তাই নয় জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার তালুকদারচর গ্রামও রয়েছে এই দ্বীপ এলাকায়। এই গ্রামগুলোতে স্কুল, কলেজ ও মাদরাসায় পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীসহ হাজারো মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন খেয়া নৌকা দিয়ে পার হয়ে বরিশাল সদরে আসেন।

বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে এই নদী পার হওয়া অনেক ঝুঁকিপূর্ণ। গ্রামবাসীর জন্য উপজেলা ও বরিশাল শহরে যাতায়েতের সহজ পথ হচ্ছে এটি। এই নদী থেকে প্রতিনিয়ত বরিশাল থেকে ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া লঞ্চ এবং স্প্রিট বোট চলাচলের কারণে নদীর বেসামাল স্রোতে বেশিরভাগ সময় মাঝিকে পড়তে হয় চরম বিপাকে।

ফলে প্রায়শই ঝড়-বৃষ্টিতে এলাকাবাসীদের চরম কষ্ট পোহাতে হয়। এই গ্রামের হাজারও শিক্ষার্থী প্রতিদিন পাশ^বর্তী ইউনিয়ন ও বরিশালের স্কুল ও কলেজে যাতায়াত করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে।

 

এছাড়া প্রতিদিন কয়েক হাজার গ্রামবাসী হাট-বাজার, হাসপাতালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজ সারতে জেলা ও উপজেলা শহরে এই নদী পার হয়ে যাতায়াত করেন। আর এসব দূর্ভোগের হাত থেকে রক্ষায় ওই গ্রামের চরমোনাই প্রান্তে বাঁশ ও কাঁঠ দিয়ে সাঁকো তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন স্থানীয় অবসারপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক সামছুল আলম।

 

তিনি জানান, দীর্ঘ বছর ধরে আমরা এই একটি সেতুর দাবীতে বিভিন্ন জনপ্রতিনিধির কাছে ঘুরেছি কিন্তু আজ পর্যন্ত আমরা এই সেতুটি বাস্তবায়ন দেখিনি। তাই গ্রামবাসিদের সহযোগীতায় চরমোনাই ও টুঙ্গিবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের সাথে কথা বলে বাঁশের সাঁকো তৈরি করতেছি।

তিনি আরও বলেন, শুধু এই বাঁশের সাঁকোই না আমরা এখানে একটি স্থায়ী সেতুর দাবী জানাচ্ছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে। স্থানীয় বাসিন্দা গোলাম মোস্তফা চান্দু জানান, আমাদের ২০ থেকে ২৫ হাজার লোকের দূর্ভোগ দেখার কেউ নেই।

আমাদের এখানে রাস্তা-ঘাট যা আছে তাই দিয়ে চলে কিন্তু একটি সেতুর আমাদের খুবই দরকার। তাই সরকারের কাছে অনুরোধ একটি সেতু দিয়ে আমাদের দূর্ভোগের হাত থেকে যেন রক্ষা করেন।

এব্যাপারে বরিশাল সদর আসনের সংসদ সদস্য ও পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল (অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীম জানান, ‘সেতুটি করার পরিকল্পনা রয়েছে। আমি এলজিআইডি মন্ত্রীর সাথে কথা বলবো যাতে দ্রুত সেতুটির কাজ শুরু করা যায়।’ শুধু আশ^াস নয়, দ্রুত সেতুটি বাসন্তবায়নের দাবী স্থানীয়দের।

আমাদের ফেসবুক পাতা

© All rights reserved © 2018 DailykhoborBarisal24.com

Desing & Developed BY EngineerBD.Net